May 28, 2024, 7:33 pm
শিরোনাম :
নরসিংদীর রায়পুরায় ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীকে পিটিয়ে হত্যা শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন বোচাগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন কুলিয়ারচরে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আবুল হোসেন লিটন চেয়ারম্যান নির্বাচিত ময়মনসিংহে প্রতিবেশীর সাথে সংঘর্ষের জেরে কৃষকের মৃত্যুর ঘটনায় গ্রেফতার ৩ সাংবাদিক এস,এম ইসাহক আলী রাজুর জন্মদিন আজ ভেড়ামারায় উপজেলার চেয়ারম্যান হলেন মুকুল আচরণবিধি লঙ্ঘন করে শোডাউন, তিন প্রার্থীর জরিমানা বোচাগঞ্জে নিখোঁজের দুই দিন পর স্কুলছাত্রের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার ট্রেনের রুট পরিবর্তন: ভোগান্তির শিকার তিন উপজেলার লাখো মানুষ আসছে ঈদে পারভীন লিসার নতুন চমক “তুমি আমার মনের ভেতর”

চাঁদা না দেওয়ায় তিতুমীর কলেজ ছাত্রকে রক্তাক্ত করার অভিযোগ আশুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে

নিজস্ব প্রতিবেদক:
রাজধানীর সরকারি তিতুমীর কলেজে পড়ুয়া এক শিক্ষার্থীকে চাঁদা না দেয়ায় হামলার অভিযোগ উঠেছে সাভারের আশুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. শাহাব উদ্দিনের বিরুদ্ধে।

জানা যায়, তিতুমীর কলেজের ২০১৬-১৭ বর্ষের বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী মাসুম বিল্লাহ গত রোববার চাঁদা না দেয়ায় হামলার শিকার হয়েছেন। আর তার দাবি স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের নেতৃত্বেই এ হামলা চালানো হয়েছে।

মাসুম অভিযোগ করে বলেন, আমি গরিব পরিবারের সন্তান। অভাবের কারণে আমি সাভারের আশুলিয়ার খেজুরবাগান ল্যান্ডমার্কের সামনে ভ্যানে করে সবজি বিক্রি করি। হঠাৎ এর মাঝে একদিন চেয়ারম্যানের লোকজন এসে আমাকে তাদের প্রতিমাসে পাঁচ হাজার টাকা করে চাঁদা দিতে বলে। আমি চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানাই। এরপর তারা আমাকে দেখে নেয়ার হুমকি দিয়ে চলে যায়।’ ‘আমি তাদেরকে বলেছি, ভাই- আমি ছাত্র মানুষ। আমি অভাবের কারণে ব্যবসা করি। যেটা দিয়ে আমার পেট চলে। আমি এই করে আমার পড়াশোনার খরচ জোগাই। আমি দ্বিতীয় বর্ষে থাকাকালীন সময় টাকার অভাবে ফরম পূরণ করতে পারিনি। এখন আপনাদের টাকা দিব কীভাবে?’ সে আরও বলেন, তারা আমাকে হুমকি দিয়ে চলে যাওয়ার কিছুক্ষণ পর আবার সবাই আসে। তখন কারো হাতে চাপাতি ছিলো, কারো হাতে ছিলো রামদাঁ, কারো হাতে লাঠি। সবাই এসে আমাকে পিছন থেকে মারা শুরু করে করে। একজন আমার হাতে কোঁপ দেয়। আমি ভয়ে দৌঁড় দিলে তারা আমার পেছনে ধাওয়া শুরু করে। এরপর আমি একটা বিল পেরিয়ে খালের মধ্যে ঝাঁপ দেই। এ সময় তারা উপর থেকে আমার গায়ে পাথর, লাঠি ছুড়ে মারতে থাকে। পাথরের আঘাতে আমার মাথা এখনো ফুলে আছে। আমি গত দুইদিন ধরে হাসপাতালে ছিলাম। আমার হাত ভেঙে গেছে। আমার আঙ্গুল ভেঙে গেছে।’ ‘আমি খাল পেরিয়ে এক বাথরুমের পাশ দিয়ে পালিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর শুনি আমাকে হাসপাতাল থেকে ওরা তুলে নিয়ে মেরে ফেলতে চেয়েছে। তাই আমি এখন পালিয়ে আমার এক আত্মীয়ের আশ্রয়ে রয়েছি।’

এদিকে আশুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. সাহাবউদ্দিনের সাথে মুঠোফোনে কথা বললে অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, আমি এই এলাকার জনপ্রতিনিধি আমার নামে এই এলাকায় চাঁদাবাজির অভিযোগ নেই। তিনি বলেন যারা এই ছেলের উপর হামলা করেছে আমি কথা দিলাম অভিযোগ সত্য হলে আমি তাদের উপযুক্ত বিচার করবো।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা