1. [email protected] : admi2019 :
  2. [email protected] : খুলনা বিভাগ : খুলনা বিভাগ
  3. [email protected] : Monir monir : Monir monir
  4. [email protected] : Mostafa Khan : Mostafa Khan
  5. [email protected] : mahin : mahin khan
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ০৪:৫৬ পূর্বাহ্ন

নরসিংদীতে করোনায় আক্রান্তের সর্বোচ্চ রেকর্ড

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১১ এপ্রিল, ২০২১
  • ৭৩ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক

সারাদেশে করোনা সংক্রমণের দিক দিয়ে ৬ষষ্ঠ স্থানে থাকা নরসিংদী জেলায় বেড়েই চলছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে আরও ৭৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। যা সাম্প্রতিক সময়ের জেলার একদিনের সর্বোচ্চ রেকর্ড।

রবিবার (১১ এপ্রিল) দুপুরে এ তথ্য জানিয়েছেন নরসিংদীর সিভিল সার্জন ডা. মোঃ নুরুল ইসলাম।

এদিকে প্রতিদিনই কোভিড ডেডিকেটেড নরসিংদীর ৮০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে বাড়ছে করোনা রোগী ভর্তির চাপ। এক সপ্তাহে ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনায় আক্রান্ত সন্দিগ্ধ ৫ জনসহ মোট ৬ জনের মৃত্যু ঘটেছে বলে জানিয়েছেন কোভিড ডেডিকেটেড নরসিংদীর ৮০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের মুখপাত্র চিকিৎসক মো. মিজানুর রহমান।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্যমতে, গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে আরও ৭৩ জন করোনায় আক্রান্ত নিয়ে এই জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাড়াল ৩ হাজার ৫০৭ জনে।

সিভিল সার্জন মোঃ নুরুল ইসলাম জানান, গত ২৪ ঘন্টায় ১৯৭ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য রাজধানীর মহাখালীর ইনস্টিটিউট অব পাবলিক হেলথে (আইপিএইচ) পাঠানো হয়। এতে ৫৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ২৮ জন, পলাশে ১৬ জন, মনোহরদীতে ৯ জন ও শিবপুর উপজেলায় ৬ জন। এছাড়া অ্যান্টিজেন পরীক্ষায় সদরে ৮ জন, শিবপুরে ৩ জন ও রায়পুরায় ৩ জন শনাক্ত হয়।

এ পর্যন্ত শনাক্তদের মধ্যে মধ্যে সদর উপজেলায় ২২২৯ জন, শিবপুরে ৩১১জন, পলাশে ৩৮৮ জন, মনোহরদীতে ২০৬ জন, বেলাবোতে ১৬৪ জন, রায়পুরাতে ১৯৭ জন।

জেলায় এ পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন মোট ৫৬ জন। এর মধ্যে নরসিংদী সদরে ৩০, পলাশের ০৩, বেলাব ০৬, রায়পুরা ০৮, মনোহরদী ০২ ও শিবপুরে ০৭ জন।

কোভিড ডেডিকেটেড নরসিংদীর ৮০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের মুখপাত্র ডা. মিজানুর রহমান জানান, জেলার হাসপাতালটিতে রোববার পর্যন্ত মোট ৫০ জন রোগী ভর্তি রয়েছেন। প্রতিদিনই গড়ে ১০/১২ জন করে নতুন রোগী ভর্তি হতে আসছেন। এ অবস্থা চলতে থাকলে কোন শয্যা ফাঁকা থাকবে না। একসঙ্গে ৮০ জন করোনা রোগীক চিকিৎসা সেবা দিতে গেলে আমাদেরও হিমশিম খেতে হবে। করোনা সংক্রমণ কমাতে হলে সকলকে অবশ্যই সচেতন হতে হবে এবং মাস্কের ব্যবহার ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..